২১, নভেম্বর, ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ১৩ কোটি টাকা লুটপাট; সিভিল সার্জনের অফিস ঘেরাও!

আপডেট: April 24, 2019

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের ১৩ কোটি টাকা লুটপাট; সিভিল সার্জনের অফিস ঘেরাও!

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরায় স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে বরাদ্দের কোটি টাকা লুটপাটের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে সিভিল সার্জন অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছে নাগরিক আন্দোলন মঞ্চ।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে তারা এ কর্মসূচি পালন করে। বিক্ষোভ কর্মসূচি শেষে তারা প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে স্মারক লিপি প্রদান করেন।

বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের আহবায়ক অ্যাড. ফাহিমুল হক কিসলু, সদস্য সচিব হাফিজুর রহমান মাসুম, সাবেক পিপি এড. ওসমান গণি, জাসদ কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক ওবায়দুস সুলতান বাবলু, জেএসডির জেলা সভাপতি সুধাংশ শেখর, মুক্তিযোদ্ধা সুভাস সরকার প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, সাতক্ষীরার ২২ লক্ষ মানুষের স্বাস্থ্য সেবা হুমকির মুখে। মানসম্মত চিকিৎসা সেবা পাওয়ার জন্য আজ নাগরিকদের রাজপথে আন্দোলন করতে হচ্ছে। সাতক্ষীরার সরকারি হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মান একেবারেই নিম্নমানের।

চিকিৎসকরা ঠিকমতো হাসপাতালে উপস্থিত থাকেন না, রোগী দেখেন না বরং দালাল চক্রের মাধ্যমে রোগীদের বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিক, হাসপাতাল ও প্রাইভেট চেম্বারে ভাগিয়ে নিয়ে গলাকাটা ফিস নিচ্ছেন। সরকারি হাসপাতালের এক্স-রে মেশিন, আল্ট্রাসনো মেশিন, ইসিজিসহ উচ্চমূল্যের যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে পড়ে থাকে দিনের পর দিন।
হাসপাতালেল টয়লেট, কিচেন চরম অস্বাস্থ্যকর।

সরকারি ওষুধ রোগীদের কপালে জোটে না। এমন সংকটপন্ন অবস্থায় ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সরকার স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়নে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালসহ জেলার বিভিন্ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যন্ত্রপাতি ও মালামাল ক্রয়ের জন্য প্রায় ১৩ কেটি টাকা বরাদ্দ দেয়। কিন্তু মালামাল ও যন্ত্রপাতি বুঝে না পাওয়া সত্ত্বেও সাতক্ষীরার তৎকালীন সিভিল সার্জনসহ তার অফিসের কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মচারী পারস্পরিক যোগসাজসে মালামাল বুঝে নেয়া হয়েছে মর্মে মিথ্যা প্রত্যয়ণ দিয়ে সম্পূর্ণ অর্থ সরকারি কোষাগার থেকে তুলে নেন। সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রানালয়ের একটি তদন্ত টিম আকষ্মিক সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন অফিসে উপস্থিত হয়ে মালামাল ও যন্ত্রাংশ দেখতে চাইলে বিষয়টি জানাজানি হয়।

বক্তারা আরো বলেন, ইতিমধ্যে মালামাল বুঝে নেওয়ার জন্য গঠিত সার্ভে কমিটির স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে মর্মে লিখিতভাবে সাতক্ষীরার বর্তমান সিভিল সার্জনকে জানিয়েছেন ওই কমিটির তিন চিকিৎসক। স্বাস্থ্য খাতের এই কোটি-কোটি টাকা লুটপাটের সাথে জড়িত তৎকালিন সিভিল সার্জন ডা. তৌহিদুর রহমান, ষ্টোর কিপার এ.কে ফজলুল হক ও হিসাব রক্ষক আনোয়ার হোসেনের গ্রেফতার করে অতিদ্রুত বিচার করতে হবে।

বিক্ষোভ কর্মসূচি শেষে ‘নাগরিক আন্দোলন, সাতক্ষীরা’ জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও দুদকসহ বিভিন্ন দপ্তরে স্মারক লিপি প্রদান করেন।

এদিকে, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন অফিসে দুদকের একটি টিম অভিযান চালিয়েছে। অভিযানে প্রাথমিক ভাবে সত্যতা পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন দুদক এর প্রতিনিধি দল।