১২, ডিসেম্বর, ২০১৯, বৃহস্পতিবার | | ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

ছাদ কৃষি:পরিবেশ সুরক্ষার অন্যতম মাধ্যম

আপডেট: November 15, 2019

ছাদ কৃষি:পরিবেশ সুরক্ষার অন্যতম মাধ্যম

তামান্না ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় : বৈশ্বিক উষ্ণায়ন কারণে বাংলাদেশের জলবায়ু ত্রুমশ পরিবর্তিত হচ্ছে।বনভূমি,উপকূলীয় বনাঞ্চল ক্রমাগত নিধন করায় বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাত্রা বেড়ে যাচ্ছে।মূলত গ্রামের চেয়ে শহরাঞ্চলে পরিবেশ দূষণের মাত্রা বেশী।এই দূষণের মাত্রা কমানোর জন্য প্রয়োজন বৃক্ষরোপণ।পর্যাপ্ত খালি জায়গা না থাকায় শহরাঞ্চলে বৃক্ষরোপণ সহজ হয় না।কিন্তু বাংলাদেশসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় এক বিশেষ কৃষি পদ্ধতি চালু হয়েছে যার নাম ছাদকৃষি।

বর্তমানে বাংলাদেশে ছাদকৃষি ব্যাপক প্রসারতা লাভ করেছে।কৃষিবিদ ও মিডিয়াব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ বাংলাদেশে এই পদ্ধতির প্রসারতা ঘটিয়েছেন।ঢাকা শহরের বেশীরভাগ বাড়ির ছাদে ছাদকৃষির পরিবেশ পরিলক্ষিত হচ্ছে।ছাদে ছাদকৃষির জন্য নির্দেশনা অনুসারে ছক আকারে গর্তের মধ্যে মাটি দিয়ে অথবা মাটির টব,প্লাস্টিকের ড্রামে বিভিন্ন প্রজাতির দেশী,বিদেশী ফুল,ফল,শাকসবজির চারা রোপন করা,যায়।সার ও কীটনাশক যথাসময়ে দিলে এবং গাছের নিয়মিত পরিচর্যা করলে ফলন ভালো হয়।ফলে একদিকে যেমন পরিবেশ সুরক্ষিত হয়,তেমনি উৎপাদিত বিষমুক্ত ফল,সবজি পাওয়া যায় যা ঢাকা শহরে দুষ্প্রাপ্য।ছাদকৃষিতে খরচ কম হওয়ায় ঢাকা শহরের বাসিন্দারা ছাদ খালি ফেলে না রেখে ছাদকৃষিতে আগ্রহ প্রকাশ করছে।

এক প্রতিবেশীর অনুপ্রেরণায় অন্য প্রতিবেশী ছাদকৃষি করছে।বিশ্বের উন্নতদেশগুলোতে ছাদকৃষি করায় ভবন মালিকদের আয়কর কমিয়ে দিচ্ছে সে দেশের সরকার।এছাড়াও ছাদকৃষি পরিবেশের সৌন্দর্য বাড়ায়।শহরাঞ্চলের জনগণের কাছে অবসর সময়ে ছাদকৃষি এখন শখের বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। ছাদকৃষি পদ্ধতি অবলম্বনকারী কয়েকজন প্রবীণ লোক বলেন,সরকারের প্রয়োজনীয়ব্যবস্থা, কৃষি মন্ত্রনালয়ের সঠিক দিকনির্দেশ, টেলিভিশনে কৃষিভিত্তিক অনুষ্টানে ছাদকৃষির গুরুত্ব তুলে ধরে প্রচারনা করলে সমগ্র বাংলাদেশে এর প্রগাঢ়তা লাভ করবে বলে আশা করা যায়।