নুসরাত হত্যায় অর্থযোগানদাতাদের খুঁজছে সিআইডি

জাতীয়

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যার ঘটনা চাপা দিতে অর্থ লেনদেনের তথ্য উদঘাটন করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিট (সিআইডি)। এ হত্যার ঘটনায় অর্থ যোগানদাতা হিসেবে বেশ কয়েকজনের নাম পেয়েছেন তারা।

শনিবার (২০ এপ্রিল) সকালে মালিবাগ সিআইডি কার্যালয়ে সম্মেলনে সিআইডির সিনিয়র সহকারী বিশেষ পুলিশ সুপার শারমিন জাহান এই তথ্য জানান।

শারমিন জাহান বলেন, এ হত্যাকাণ্ড ঘটাতে অর্থের লেনদেন করা হয়েছে। আমরা সেই অভিযোগেরই তথ্য প্রমাণ পেয়েছি। অর্থ লেনদেনে জড়িত ও অর্থ যোগানদাতাদের খুঁজে বের করতে এরইমধ্যে অভিযান চলছে।

তবে নুসরাত হত্যাকাণ্ড ধামাচাপা দিতে অবৈধ লেনদেনের সঙ্গে যারা জড়িত রয়েছে, সিআইডি তাদের নাম প্রকাশ করেনি। এরইমধ্যে এসব লেনদেনের সঙ্গে জড়িত সেসব ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনতে কাজ শুরু করছে সিআইডি। তাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ সাপেক্ষে তাদের গ্রেফতার করা হবে।

আলোচিত এ মামলায় এ পর্যন্ত ১৮ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ও পিবিআই। তারা হলেন– অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদ দৌলা, কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মুকছুদ আলম, শিক্ষক আবছার উদ্দিন, সহপাঠী আরিফুল ইসলাম, নূর হোসেন, কেফায়াত উল্লাহ জনি, মোহাম্মদ আলা উদ্দিন, শাহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষের ভাগনি উম্মে সুলতানা পপি, জাবেদ হোসেন, জোবায়ের হোসেন, নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন, মো. শামীম, কামরুন নাহার মনি, জান্নাতুল আফরোজ মনি, শরীফ ও হাফেজ আবদুল কাদের। তাদের মধ্যে ৪ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলার নির্দেশে তারা নুসরাতের গায়ে আগুন দিয়েছে বলে স্বীকার করেছেন। তাদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতার করেছে পিবিআই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *