তারেক জিয়ার সিদ্ধান্তেই বিএনপি সংসদে যাবে না: মওদুদ

রাজনীতি

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ জানিয়েছেন, বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদে যাবে না। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে কথা বলেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বরের ভোটে বিএনপি থেকে নির্বাচিত ৬ জনপ্রতিনিধির শপথ নেয়ার প্রশ্নই আসে না। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সম্মতিক্রমে আমরা স্থায়ী কমিটি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সংগ্রামী জীবন ও কর্ম নিয়ে লেখা বইয়ের প্রকাশনা উৎসবে দেয়া বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রকাশনা উৎসবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন, খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া বইয়ের লেখক অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ ও কবি আবদুল হাই শিকদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার‌্য অধ্যাপক ড. আনোয়ারউল্লাহ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরউল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

‘খালেদা জিয়া: তৃতীয় বিশ্বের কণ্ঠস্বর’ শিরোনামে বইটি লিখেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ ও কবি আবদুল হাই শিকদার। বইটির প্রকাশনা উৎসবের আয়োজক শত নাগরিক কমিটি।

অনুষ্ঠানে মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত বিএনপির নির্বাচিতদের সংসদে যাওয়া নিয়ে কোনো আলোচনা নয়। আর নির্বাচিতদের শপথ নেয়ার তো প্রশ্নই আসে না। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সম্মতিক্রমে আমরা স্থায়ী কমিটি বসে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সুতরাং এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসা যাবে না। বিষয়টি এখানেই নিষ্পত্তি হওয়ার প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।

দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সীমাহীন নির্যাতন বিএনপিকে আরও বেশি শক্তিশালী করেছে মন্তব্য করে দলটির এ জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, আজকে আওয়ামী লীগের নির্যাতনের কারণে বিএনপি আগামী ১০০ বছর রাজনৈতিক দল হিসেবে টিকে থাকবে। আওয়ামী লীগের এ সীমাহীন অত্যাচার আর নির্যাতন বিএনপিকে আরও বেশি শক্তিশালী করেছে।

সরকারের বাধায় কারাবন্দি খালেদা জিয়ার মুক্তি হচ্ছে না অভিযোগ করে সাবেক এ আইনমন্ত্রী বলেন, রাজনৈতিক কারণে মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় বিএনপি নেত্রী আজ কারারুদ্ধ। সরকারের ইচ্ছা থাকলে তিনি আরও আগেই মুক্তি পেতেন। তার সব মামলা জামিনযোগ্য হলেও আমরা তাকে মুক্ত করতে পারছি না।

খালেদা জিয়ার মুক্তি মানে দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসা মন্তব্য করে তিনি বলেন, দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে বলতে চাই- তিনি যত দ্রুত ফিরে আসবেন, ততই আমাদের মঙ্গল। তার ফিরে আসা মানেই হলো- বাংলাদেশে গণতন্ত্র ফিরে আসা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *