৯, ডিসেম্বর, ২০১৯, সোমবার | | ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

শিকল বন্দী লতিফুনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ডিসি

আপডেট: October 12, 2019

শিকল বন্দী লতিফুনের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন ডিসি

সংবাদ প্রকাশের পর….

আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: পিপলস্ নিউজের সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে শিকলবন্দী জীবন থেকে মুক্তি পেলেন লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের উত্তর গোবদা গ্রামের লতিফুন বেগম (৬৫)।

শক্রবার (১১ অক্টোবর) রাতে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসন মোঃ আবু জাফরের উদ্যোগে তাকে শিকলমুক্ত করা হয়। এবং রাতেই লালমনিরহাট নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (নেদারক ডেপুটি কালেকটর) শহিদুল ইসলাম ও আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারঃ) ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও জি আর শারওয়ার নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থল থেকে লুতিফুন বেগমকে তার পারিকারিক লোকজনের সাথে কথা বলে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর মেডিকেলে নিয়ে যায়।

এর আগে, টানা দুই বছর ধরে বাড়ির উঠানে রাস্তার পাশে গাছের সঙ্গে শিকলে বাঁধা রয়েছেন লতিফুন বেগম (৬৫)। অচেনা লোক দেখলেই অপলক দৃষ্টিতে চেয়ে থাকেন। তার অনেক জিজ্ঞেসা হয়তো মানুষের কাছে। কেনো তার পায়ে শিকল বাঁধা? তিনি তার কারণ না জানলেও পরিবারের লোকজনের দাবি মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়াতে দুই বছর ধরে তাকে এভাবে শিকল বন্দী রাখা হয়েছে। এ অবস্থায় ঠিকমত খাওয়া-দাওয়া না করায় শরীরে জেঁকে বসেছে নানা রোগ। এমন একটি বিরল চিত্র সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশে লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক মোঃ আবু জাফরের দৃষ্টিতে পড়ে।

লতিফুন লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের শঠিবাড়ী শঠিবাড়ি বাজারের পুর্ব পাশ্বে নুরজাহানের স্বামী পরিত্যক্তা বোন।

লালমনিরহাট নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (নেদারক ডেপুটি কালেকটর) শহিদুল ইসলাম জানান, ‘দুই বছর শিকল বন্দী লতিফুন’ এমন একটি সংবাদ প্রকাশ করা হলে জেলা প্রসাশকের নির্দেশক্রমে সিভিল সার্জনের পরামর্শ মোতাবেক স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, জনগন ও সাংবাদকর্মীদের উপস্থিতিতে তাকে আমাদের গাড়ীতে তুলে নিয়ে এসে উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, লতিফুনকে সদর হাসপাতালে ভর্তির ব্যাপারে তিনি অবগত আছেন এবং তার সু-চিকিৎসা করতে যা করনীয় তা করা হবে। এ বিষয়ে সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলে উন্নত চিকিৎসা করার জন্য পাবনায় মানসিক হাসপাতালে প্রেরন করা হবে।