কুলিয়ারচরে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব জিল্লুর রহমান সেতু উদ্বোধন করলেন পাপন

জাতীয় সমগ্র বাংলা

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি, মোঃ মাইন উদ্দিনঃ প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব জিল্লুর রহমানের অঙ্গীকার বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ভৈরব-কুলিয়ারচর মানুষের দীর্ঘ কয়েক যুগের স্বপ্ন কালী নদীর উপর নির্মিত ভৈরব-কুলিয়ারচর দুই উপজেলার মিলন সেতুটি উদ্বোধন করা হয়েছে।

সোমবার (৭ অক্টোবর) বিকাল ৫টার দিকে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব জিল্লুর রহমানের নামে সেতুটি আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করেন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি আলহাজ্ব জিল্লুর রহমানের সুযোগ্য সন্তান কিশোরগঞ্জ-৬ (ভৈরব-কুলিয়ারচর) আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপন।

ভৈরব উপজেলা পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত মানিকদী এলাকায় অনুষ্ঠিত সেতু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোঃ সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কুলিয়ারচর গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ মুছা মিয়া (সিআইপি), ঢাকা বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সুশংকর চন্দ্র আচার্য্য। মূখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভৈরব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ সায়দুল্লাহ মিয়া।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইয়াছির মিয়া, কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাউসার আজিজ, ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা, ভৈরব সার্কেলের এ এস পি রেজওয়ান দিপু, ভৈরব উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সেন্টু মিয়া, কুলিয়ারচর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মোঃ সামাদুল ইসলাম, ভৈরব উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ ইব্রাহীম মিয়া, গজারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ফরিদ উদ্দিন খান সহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীবৃন্দ।

সেতুটি নির্মাণের ফলে দুই উপজেলাবাসীর জন্য খুলেছে নতুন দুয়ার। দুই উপজেলার হাজার হাজার মানুষের দাবীকৃত এই সেতুটি নির্মাণের ফলে যেমন গ্রামীণ অবকাঠামোর উন্নয়ন হয়েছে। তেমনি বাড়বে জীবনযাত্রার মান। একই সাথে গ্রামাঞ্চলে উৎপাদিত বিভিন্ন কৃষিপণ্য সহজে শহরের হাট-বাজারে ন্যয্য মূল্যে বিক্রি করতে পারবে কৃষকরা। ফলে মহা খুশি তারা। এছাড়াও জিল্লুর রহমান সেতুটি উদ্বোধন হওয়ায় এলাকায় বইছে উৎসবের আমেজ। স্থানীয় সংসদ সদস্য ও বিসিবি সভাপতি আলহাজ্ব নাজমুল হাসান পাপনকে অভিনন্দন জানিয়ে গাছে গাছে ব্যানার ও ফেস্টুন টানানো হয়েছে। প্রায় দুই কিলোমিটার সড়কে ২০টির বেশি তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে।

জানা গেছে, সারাদেশে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নের অংশ হিসেবে ভৈরব-কুলিয়ারচর এ দুই উপজেলাবাসীর কয়েক যুগের স্বপ্ন বাস্তবায়নে কালী নদীর উপর ৫২০.৬০ মিটার চেইনেজ একটি সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়। ফলে ৭১ কোটি ১৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৭ সালের মার্চ মাসে সেতুর নিমার্ণ কাজ শুরু করা হয়। দু’বছর মেয়াদী সেতুটি চলতি বছরের মার্চ মাসে নিমার্ণ কাজ শেষ হবার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময়ের চেয়ে কিছু সময় বেশি লাগলেও সেতু নির্মাণ সম্পন্ন হওয়ায় নদীর পাড়ের বাসিন্দারা আনন্দিত ও উল্লাসিত।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এলাকাবাসী বলেন, কালী নদীর উপর মানিকদী- কুলিয়ারচর সংযোগ সেতুটি নির্মাণ হওয়ায় দুই উপজেলার মানুষের দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। ফলে নদী পারাপারে আর কোন ভোগান্তির স্বীকার হতে হবেনা। এছাড়াও সেতুটি চালু হওয়ায় কুলিয়ারচর বাজারে ব্যবসা-বাণিজ্যের উন্নতিসহ বাড়বে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবার মান। দুই উপজেলার মিলন সেতুটিকে ঘিরে সেতু এলাকায় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠলে অর্থনীনৈতিক উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন স্থানীয়রা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *