কতটা চমক থাকছে ভারতের ১৫ সদস্যের বিশ্বকাপ দলে

খেলাধুলা

আর মাত্র ৪ দিন। তারপরই ইংল্যান্ডের মাঠে বিশ্বযুদ্ধের সৈনিকদের নাম ঘোষণা। থুরি ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতীয় দলে যারা থাকবেন, তাদের নাম ঘোষণা। বিরাট কোহালির হাত ধরে বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে দিয়েছেন দেশের আপামর ক্রিকেটপ্রেমী। ১৫ এপ্রিল, পয়লা বৈশাখ মুম্বইয়ে দল ঘোষণা করা হবে ১৫ জনের সদস্যের। এই টিমে কারা কারা থাকতে পারেন, দেখে নেওয়া যাক।

মোহম্মাদ শামি: ভারতীয় পেসারদের মধ্যে অন্যতম সেরা শামির নাম উঠে আসছে। তিনি ধারাবাহিকভাবে ভাল খেলছেন। তাঁর গতি বিপক্ষকে ভয় ধরানোর জন্য যথেষ্ট। তৃতীয় সিমার হিসাবে দলে তিনি থাকবেনই।

যশপ্রীত বুমরা: তিন ফরম্যাটের ক্রিকেটেই বল হাতে সোনা ফলিয়েছেন। আইপিএলেও মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে বুমরার ফর্ম অসাধারণ। গতি আর ইয়র্কারে বিধ্বস্ত করতে পারেন বিপক্ষকে।

যুজবেন্দ্র চহাল: তার হাতে জাদু রয়েছে, এমনটাই বলেছেন কপিল দেবের মতো একাধিক সাবেক তারকা। বোলিং বৈচিত্র নিয়ে প্রশংসা করেছেন মুথাইয়া মুরলীধরনও। ডান হাতি লেগ ব্রিক স্পিনারের কব্জির ভেলকিতে বিপক্ষের কটা উইকেট পড়ে সেটাই দেখার।

কুলদীপ যাদব: চায়না ম্যানের ভেলকি যদি চহালের সঙ্গে যোগ হয়, বিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের পক্ষে ঘুরে দাঁড়ানোই মুশকিল। কব্জির খেলেই কুল-চা জুটি বিশ্বকাপ মাতাবেন বলে মনে করা হচ্ছে। আইপিএলে চহালের মতোই কুলদীপের পারফরম্যান্সও বেশ ভাল। ফর্ম ধরে রাখতে পারলেই স্পিনারদের আর চিন্তার কারণ থাকবে না ভারতীয় দলে। ৩৯টি একদিনের ম্যাচে ৭৭টি উইকেট পেয়েছেন তিনি।

ভুবনেশ্বর কুমার দলে সুযোগ পাবেন বলেই মনে করা হচ্ছে। এই ডান হাতি ফাস্ট বোলার দলের বড় ভরসা। ১০৫টি একদিনের ম্যাচ খেলে ১১৮টি উইকেট পেয়েছেন ভুবি।

রবীন্দ্র জাদেজা বল ও ব্যাট দুয়েই দক্ষ। অলরাউন্ডার জাদেজা সুযোগ পেতে পারেন দলে। আইপিএলেও পারফরম্যান্স বেশ ভাল তার।

কেদার যাদব বিশ্বকাপের দলে জায়গা পাবেনই, এমনটাই মত বিশেষজ্ঞদের। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে কেদারের পারফরম্যান্স খুব যে ভাল তা নয়, তবে ব্যাটে-বলে তাঁর দক্ষতার জন্যই দলে তিনি জায়গা করে নেবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

লোকেশ রাহুল বিশ্বকাপ স্কোয়াডে ১৫ জনের দলে থাকতে পারেন তৃতীয় ওপেনার হিসাবে। একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে মহিলাদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের জন্য সাসপেন্ড হয়েছিলেন দল থেকে। রাহুল দ্রাবিড়ও প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান বলেই উল্লেখ করেছেল লোকেশ রাহুলকে। আইপিএলেও ভাল ফর্মে রয়েছেন। দলে সুযোগ করে নিতে পারেন তিনি।

রাহুলের সঙ্গে একই কারণে দল থেকে সাসপেন্ড করা হয়েছিল হার্দিক পাণ্ড্যকে। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দারুন কামব্যাক করেছেন তিনি। হার্দিক ব্যাট ও বল দু’য়েই দক্ষ। অলরাউন্ডার হার্দিক থাকছেনই বিশ্বকাপের দলে।

মহেন্দ্র সিং ধোনি বিশ্বকাপজয়ী দলের অধিনায়ক। ২০১১ সালে ক্যাপ্টেন কুলের হাত ধরেই জয় পেয়েছিল ভারত। উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ধোনি নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করে চলেছেন সমানে। সঙ্গে রয়েছে তাঁর অসাধারণ ম্যাচ রিডিং। চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়ক হিসাবেও তিনি সফল।

অম্বাতী রায়ডুকে চার নম্বরে খেলানো হতে পারে। প্রায় দু’বছর দল পরীক্ষাও চালিয়েছে বিষয়টি নিয়ে। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুরন্ত কামব্যাক করেন তিনি। বিরাট কোহালির অনুপস্থিতিতে তিনি ভাল পারফরম্যান্স করেছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধেও একদিনের ম্যাচে ভাল খেলেছেন। টিম ম্যানেজমেন্টের আস্থা রয়েছে তাঁর উপরে।

দীনেশ কার্তিককে কিন্তু রায়ুডুর বদলে চার নম্বরে খেলার কথা বলেছেন অনেকেই। ব্যাট হাতে তিনি দক্ষ, এ ছাড়াও উইকেটকিপার হিসাবেও কার্তিককে সফল বলা যায়। তার ক্ষেত্রে সুবিধা হল, তিন নম্বর থেকে সাত নম্বর প্রতিটি পজিশনেই তিনি খেলেছেন। মোটামুটি সফলই বলা যায়। পন্থ বা রাহানের বদলে তাঁকেই বেছে নিতে পারেন নির্বাচকরা।

কপিল দেব ও ধোনির পর কাপটা তাঁর হাতেই যেন যায়, সারা দেশ তারই অপেক্ষায়। রানমেশিন বিরাট কোহালির অধিনায়কত্ব ও বড় স্কোর গড়ার ক্ষমতা নিয়ে কোনও কথাই হবে না। দক্ষিণ আফ্রিকা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডে একদিনের সিরিজে সাফল্য পেয়েছে দল তাঁরই নেতৃত্বে। তাঁর আত্মবিশ্বাসই দলকে অনেকটা এগিয়ে দেবে।

বিশ্বকাপে রোহিতের দলে সুযোগ পাওয়া নিয়ে বিতর্কের কোনও অবকাশই নেই। সহ-অধিনায়ক রোহিতের ধারাবাহিকতা নিয়ে কোনও কথা হবে না। ধওয়নের সঙ্গে সঠিক জুটি বাঁধলে দলের পক্ষে তা অনেকটাই সুবিধাজনক। এ ছাড়াও দীর্ঘ ইনিংস খেলে স্ট্রাইক রেট বাড়ানোর ঝোঁকের কারণেই রোহিত যে ইংল্যান্ডের আসরে বড় ভরসা হতে চলেছেন, এতে কোনও সন্দেহ নেই।

শিখর ধাওয়ানের পক্ষে গত এক বছর মোটামুটি কাটলেও ওপেনারদের মধ্যে তিনিই প্রথম ‘চয়েস’। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে, ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারতের সেরা রান স্কোরার ছিলেন ধাওয়ন। ইংল্যান্ডে ভারতের সাফল্যের অনেকটাই নির্ভর করবে ধওয়নের ভাল খেলার উপরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *