৯, ডিসেম্বর, ২০১৯, সোমবার | | ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

দ. সুদানের নেতাদের পায়ে চুমু খেলেন পোপ ফ্রান্সিস

আপডেট: April 13, 2019

দ. সুদানের নেতাদের পায়ে চুমু খেলেন পোপ ফ্রান্সিস

নতজানু হয়ে দক্ষিণ সুদানের নেতাদের পায়ে চুমু খেলেন ক্যাথলিক চার্চের প্রধান পোপ ফ্রান্সিস। দক্ষিণ সুদানের প্রেসিডেন্ট সালভা কির মায়ার্দিত এবং বিরোধী দলীয় নেতা রিয়েক মাচার বৃহস্পতিবার একটি প্রতিনিধি দলসহ পোপ ফ্রান্সিসের সঙ্গে দেখা করতে গেলে তিনি নতজানু হয়ে তাদের পায়ে চুমু খান।

ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আফ্রিকার দেশ দক্ষিণ সুদানে শান্তি প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানিয়ে একে একে নেতাদের পায়ে চুমু খান পোপ।

দুই দিনের ধর্মীয় উৎসব উপলক্ষে ভ্যাটিকানে গিয়েছিলেন ওই নেতারা। সে সময় দক্ষিণ সুদানের চলমান সংকটের মধ্যেও শান্তি প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নিতে দেশটির প্রেসিডেন্ট এবং বিরোধী নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান পোপ ফ্রান্সিস।

৮২ বছর বয়সী পোপের পায়ে ব্যথার কারণে তিনি যখন নতজানু হওয়ার সময় বেশ কয়েকজন সহযোগী তাকে সাহায্য করেন। সে সময় দক্ষিণ সুদানের নেতারা ছাড়াও রুমের মধ্যে আরও যারা ছিল সবার সামনে নতজানু হয়ে সম্মান জানিয়েছেন পোপ।

এর আগেও বন্দীদের পা ধুয়ে দিতে দেখা গেছে পোপকে। তবে তাকে কখনও এভাবে নতজানু হয়ে রাজনৈতিক নেতাদের পায়ে চুমু খেতে দেখা যায়নি।

দক্ষিণ সুদানের রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতাদের উদ্দেশে পোপ বলেন, আমি আন্তরিকভাবে আশাবাদ ব্যক্ত করছি যে, শত্রুতার অবসান ঘটে যুদ্ধবিরতিতে পরিণত হবে। এছাড়া রাজনৈতিক ও জাতিগত বিভাজনকে পাশ কাটিয়ে শুরু থেকেই দেশ গঠনের স্বপ্নে বিভোর নাগরিকরা স্থায়ী শান্তি পাবে।

দু’দিনের ধর্মীয় উৎসব উপলক্ষে ভ্যাটিকানে একত্রিত হয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট সালভা কির এবং বিরোধী দলীয় নেতা রিয়েক মাচার। প্রতিনিধি দলে কিরের তিন ভাইস প্রেসিডেন্টসহ দেশটির যাজকরাও উপস্থিত ছিলেন।

দক্ষিণ সুদানের ভাইস প্রেসিডেন্ট রেবেকা নায়ান্ডেং গ্যারাং জানান, ফ্রান্সিসের এমন আচরণ তাকে অবাক করেছে। তিনি বলেন, আমি এর আগে এমনটি কখনও দেখিনি। আমার চোখে অশ্রু ঝরছিল।