নতুন দল গড়ার চেষ্টায় সংস্কারপন্থিরা, সতর্ক জামায়াত

রাজনীতি

নতুন রাজনৈতিক দল তৈরির প্রস্তুতি নিচ্ছে জামায়াতে ইসলামীর সংস্কারপন্থীদের একটি অংশ। সংস্কারপন্থীরা অবশ্য এখনই নতুন দল না বলে রাজনৈতিক উদ্যোগ বলছেন। ্আগামী কিছু দিনের মধ্যেই অনুষ্ঠানিকভাবে এই উদ্যোগের প্রকাশ হতে পারে।

এরইমধ্যে তারা নিজেরা একাধিক বৈঠক করেছেন। ঠিক করছেন কলা-কৌশল। ঘরে-বাইরে কী ধরনের বিপত্তির মধ্যে পড়তে হতে পারে সেটাও বিবেচনায় নিচ্ছেন তারা। এ অবস্থায় এক ধরনের অস্বস্তি তৈরি হয়েছে জামায়াতের মধ্যে। দলীয় নেতাকর্মীদের নানাভাবে সতর্ক করা হচ্ছে।

একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে জামায়াতের বিতর্কিত ভূমিকার কারণেই দলটিতে সংষ্কার চেয়েছিলেন অনেকে।এ প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বহিষ্কার হয়েছেন কেউ কেউ। অনেকে স্বেচ্ছায় দলত্যাগ করেছেন।

সূত্রমতে, জামায়াত থেকে দূরে থাকা এসব ব্যক্তি ও বিভিন্ন শ্রেণির পেশাজীবীদের নিয়ে সংগঠিত হচ্ছে এই নতুন দল। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে একের পর এক এ বিষয়ে বৈঠক করেছেন সংশ্লিষ্টরা। ঘোষণাপত্র তৈরির পর আনুষ্ঠানিকভাবে দলটির অভিষেক হবে।

এই দলে যারা থাকছেন তারা সবাই বয়সে তরুণ। মূলত একাত্তর পরবর্তী প্রজন্মের ব্যক্তিদের নিয়ে এই দলটি সংগঠিত করা হচ্ছে। তবে কারা-কারা এই প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট রয়েছে এ বিষয়ে এখনই মুখ খুলতে চাচ্ছেন না সংশ্লিষ্টরা। এতে জামায়াত-শিবিরের কারা থাকছেন জানতে চাইলে ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি ও জামায়াত থেকে বহিষ্কৃত মজিবর রহমান মঞ্জু জানান, এই উদ্যোগের বিষয়ে জামায়াতের কাউকে নিয়ে তারা বৈঠক করেননি। তবে তিনি নিজে যেহেতু শিবিরের সাবেক সভাপতি সে হিসেবে শিবিরের অনেকেই থাকতে পারেন। এছাড়াও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ডাক্তার ও রাজনৈতিক ব্যক্তিরা এতে সম্পৃক্ত থাকবেন বলে জানান তিনি।

সূত্র বলছে, জামায়াত থেকে পদত্যাগকারী ব্যরিস্টার আব্দুর রাজ্জাকসহ এই দল থেকে দূরে থাকা নেতাদের সঙ্গেও যোগাযোগ রয়েছে এই প্রক্রিয়ায় জড়িতদের। তবে, শিবিরের সাবেক সভাপতি মঞ্জু বলছেন, ব্যারিস্টার রাজ্জাকের সঙ্গে আমাদের কোনো যোগাযোগ নেই। মূলত নতুনদের নিয়ে আমরা সংগঠিত হচ্ছি। তিনি বলেন, ব্যারিস্টার রাজ্জাকের কাছ থেকে আমরা পরামর্শ নিতে পারি। যেহেতু তিনি বিজ্ঞ ব্যক্তি।

এদিকে বৃহস্পতিবার লন্ডনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে জামায়াত থেকে পদত্যাগকারী সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, ভবিষ্যতে রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার কোনো ইচ্ছে আমার নেই। ভবিষ্যতে নতুন কোনো রাজনৈতিক দল করারো ইচ্ছে নেই।

ওই অনুষ্ঠানে সাংবাদিকরা তার কাছে জানতে চান– জামায়াতের সঙ্গে এখন তার সম্পর্ক কেমন? উত্তরে রাজ্জাক বলেন, জামায়াতের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ভালো, তবে তাদের (জামায়াতের) ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে আমি কিছু জানি না।

এদিকে সংস্কারপন্থিদের নতুন দল গঠনের উদ্যোগের কথা শোনা গেলেও জামায়াতের নতুন নামে দল গঠনের প্রক্রিয়া স্তিমিত হয়ে গেছে। গত ফেব্রুয়ারিতে দলের তৃণমূলের নেতাদের জন্য জারি করা এ নির্দেশনায় বলা হয়েছিল, মজলিশে শূরার পরামর্শে জামায়াতের নির্বাহী পরিষদ নতুন নামে দল গঠনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে পাঁচ সদস্যের কমিটি করা হলেও নতুন দল গঠনে অগ্রগতি নেই বলে জানাগেছে জামায়াত সূত্রে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *