১৯শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং, রবিবার

মায়ের পরকীয়ার প্রতিবাদে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীর সংবাদ সম্মেলন

আপডেট: ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯

| Palash Mondol

বাবাকে সঙ্গে নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী মাইমুনা আক্তার তানহা
এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মেয়ে মাইমুনা আক্তার তানহা। সে ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার বাড়ি জেলার বাসাইল উপজেলার করাতিপাড়ায়।

সংবাদ সম্মেলনে মাইমুনার আক্তার তানহা বলেন, আমি একজন নাবালিকা মেয়ে। আমার মা শাহনাজ আক্তার (৩৩) বাসাইল উপজেলার বর্ণি কিশোরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। আমার বাবা প্রবাসে থাকাকালীন (২০০৭-২০১৮ সাল পর্যন্ত) আমার মায়ের পূবালী ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে ৫৮ লাখ ৯৩ হাজার ৭৭২ টাকা পাঠায়। এছাড়া মাকে বাবা বিভিন্ন সময়ে সর্বমোট ১৬ ভরি স্বর্ণালংকার ও সখিপুর মৌজায় জমি কিনে দিয়েছেন। সেইসঙ্গে আমার নানার বাড়িতে দুটি টিনের ঘরও নির্মাণ করে দেন।

আমার বাবা বিদেশে থাকা অবস্থায় টাঙ্গাইল সদর উপজেলার চরদিঘুলিয়া গ্রামের হাসান মাস্টারের ছেলে মনিরুজ্জামান মামুনের সঙ্গে আমার মায়ের পরকীয়া সম্পর্ক হয়। পরে সেই বিষয়টি আমি জানার পর মাকে ওই অবৈধ সম্পর্ক থেকে বিরত থাকতে বলি। এ কারণে তিনি আমাকে একাধিকবার মারধর করেন।

গেল ৮ই নভেম্বর আমার মা নগদ ২০ লাখ টাকা ও ১৬ ভরি স্বর্ণ নিয়ে এবং আমার আড়াই বছরের ছোট ভাই আদিল আহানাফকে নিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। আমি ও আমার বাবা বিভিন্ন এলাকা এবং আত্মীয়ের মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি মা তার পরকীয়া প্রেমিক মনিরুজ্জামান মামুনের সঙ্গে পালিয়ে গেছে।

বিষয়টি টাঙ্গাইল-৮ (বাসাইল-সখীপুর) আসনের এমপি জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, বাসাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি, ৩০ নম্বর বর্ণি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বরাবর আবেদন করেও কোনও সুরাহা হয়নি। পরবর্তীতে আমার বাবা বাদী হয়ে টাঙ্গাইল জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বাসাইল থানা আমলি আদালতে মামলা দায়ের করেন।

তানহা আরও বলেন, বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করার পর থেকে মনিরুজ্জামান মামুন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন মাধ্যমে আমাদের হুমকি, ধমকি দিয়ে আসছে। আমি মামুনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি। আমরা এখন চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমার মাকে আমি ফেরত চাই। মাকে নিয়ে পূর্বের মতো সংসার করতে পারি সেই প্রত্যাশা কামনা করছি। এ সময় মাইমুনা আক্তার তানহার বাবা সুলতান মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।